Press releasePress release

সিউলে উৎসবমুখর পরিবেশে আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস উদযাপন ( International Migrants Day 2018)

বাংলাদেশ দূতাবাস সিউল ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস উপলক্ষে পাঁচটি ক্যাটাগরিতে তেরো জন বাংলাদেশী ইপিএস কর্মী এবং পাঁচজন কোরিয়ান নিয়োগকর্তাকে সম্মাননা প্রদান করেন সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে এইচ. আর. ডি. কোরিয়া, কমওয়েলএর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ, বিভিন্ন দূতাবাসের লেবার অ্যাটাশে, বাংলাদেশী ইপিএস কর্মী এবং প্রবাসী বাংলাদেশীসহ প্রায় শতাধিক দর্শক  উপস্থিত ছিলেন

.          অত্যন্ত উৎসবমুখর পরিবেশে আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানমালার দ্বিতীয় পর্বটি অনুষ্ঠিত হয় উল্লেখ্য, দিবসটির প্র্রথম পর্ব ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে উদযাপিত হয় বাংলাদেশী পাঁচজন ইপিএস কর্মী কর্তৃক সমবেত কন্ঠে বাংলাদেশ কোরিয়ার  জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় পর্বের এই অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করা হয় এরপর সূচনা বক্তব্যে  দূতাবাসের প্রথম সচিব (শ্রম) মকিমা বেগম দিবসের তাৎপর্য সম্পর্কে আলোকপাত করেন এরপর বক্তব্য প্রদান করেন মি: কিম হিয়স সং, প্রতিনিধি, হিউম্যান রিসোর্সেস ডেভেলপমেন্ট অব কোরিয়া হ্যাপি রিটার্নপ্রোগামের উপর এইচ. আর. ডি. কোরিয়ার একটি উপস্থাপনা প্রদান করা হয়

 .        অনুষ্ঠানের সমাপনী বক্তব্য প্রদান করেন রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম তিনি সম্মাননাপ্রাপ্ত বাংলাদেশী ইপিএস কর্মীদের অভিনন্দন জানান এবং বিভিন্ন সমাজকল্যাণমূলক কাজে তাদের সংশ্লিষ্টতার ভূয়সী প্রশংসা করেন রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম আরো বলেন, ২০১৬ সালে সর্বপ্রথম বাংলাদেশ দায়িত্বশীল, নিরাপদ নিয়মিত অভিবাসনের জন্য গ্লোবাল কমপ্যাক্টএর ধারণাটি  বিশ্বসম্প্রদায়ের নিকট উপস্থাপন করেন দুই বছর পর্যালোচনার পর ২০১৮ সালের ১৯ ডিসেম্বর এটি জাতিসংঘ কর্তৃক গৃহীত হয় তিনি বলেন, বাংলাদেশের সামাজিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে প্রবাসী কর্মীদের গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে অভিবাসনের গুরুত্ব বিবেচনা করে বাংলাদেশ সরকার সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় বিষয়টিকে অন্তর্ভূক্ত করেছে মান্যবর রাষ্ট্রদূত তাঁর বক্তব্যে দক্ষিণ কোরিয়ায় কর্মরত দশ হাজার বাংলাদেশী ইপিএস কর্মীর কর্মনিষ্ঠা, আনুগত্য এবং তাদের সমাজসেবামূলক কর্মকান্ডের প্রশংসা করেন

০৪.        এরপর সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ সংখ্যক বাংলাদেশী ইপিএস কর্মী নিয়োগের জন্য পাঁচজন কোরিয়ান নিয়োগকর্তাকে সম্মাননা প্রদান করা হয় এছাড়া ২০১৭১৮ অর্থবছরে বৈধ উপায়ে সর্ব্বোচ্চ রেমিট্যান্স প্রেরণ, একই কর্মস্থলে দীর্ঘদিন অবস্থান, ভিসা ক্যাট্যাগরি পরিবর্তন এবং কোরিয়ান সরকার কর্তৃক সম্মাননা প্রাপ্তির জন্য আঠারো জন বাংলাদেশী ইপিএস কর্মীকে  সম্মাননা প্রদান করা হয়

০৪.         উক্ত অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন দূতাবাসের কাউন্সিলর( বাণিজ্যিক) জনাব মোহাম্মদ মাসুদ রানা চৌধুরী এবং অনুষ্ঠানটি  সঞ্চালনা করেন দূতালয় প্রধান জনাব রুহুল আমিন বাংলাদেশ দুতাবাস কর্তৃক আয়োজিত এই অনুষ্ঠানটি কোরিয়ায় অবস্থানরত সকল ইপিএস কর্মীর মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ সৃষ্টি করেছে

০৫.         অনুষ্ঠানের সাংস্কৃতিক পর্বে বাংলাদেশের স্বনামধন্য অভিনয় শিল্পী মোমেনা চৌধুরী অভিনীত মুক্তিযুদ্ধ যুদ্ধোত্তর বাংলাদেশের এক বীরঙ্গনার  সংগ্রামী জীবনের নাট্য প্রকাশ লাল জমিনমঞ্চস্থ হয় অভিনয় শিল্পী মোমেনা চৌধুরীর অনবদ্য অভিনয় দর্শকদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে একটি ভিন্ন  মাত্রায় সঞ্চারিত করেছে

 Press release

            To commemorate the 2018 International Migrants Day, the Embassy of Bangladesh in Seoul honored five Korean employers and eighteen Bangladeshi EPS workers in five different categories (employing the highest number of Bangladeshi EPS workers under a single establishment, remitting the highest amount of foreign exchange to Bangladesh, serving under the same employer for the longest period of time, upgrading the visa category, receiving accolades from the Korean Government) at an event held on 23rd of December in a hall in central Seoul. Over 100 guests which include high ranking officials from HRD Korea, COMWEL, Labor Attaches from other Embassies, Bangladeshi EPS workers and members of Bangladesh community were present in the event. 

02.       The Embassy observed this Day in two segments with due fervor and festivity. The first segment was held on 18th of December at the Embassy Premise. The second segment began with the national anthem of Bangladesh and the Republic of Korea, sang by five Bangladeshi EPS workers. After that Ms. Mokima Begum, First Secretary (Labor) in her introductory remarks, elaborated on the significance of this day and stressed on sending remittance to Bangladesh using legal channels. The Representative from the HRD Korea makes his welcome remarks followed by a presentation by his office on the “Happy Return” of EPS workers.  

03.       Ambassador Abida Islam in her speech stated that Bangladesh is the first country to propose the concept of “Global Compact” for safe, orderly and regular migration in front of the international community in 2016. It has been adopted by the UNGA on 19th December 2018 after negotiating it over a period of two years. She added that with the contributions of migrants workers, Bangladesh continued to progress and prosper socially and economically. The Government of Bangladesh has included a chapter on migration and development in its 7th five-year national development plan. She also praised the hardworking and devoted 10,000 EPS workers in South Korea who are serving with sincerity and honesty. She also laud the role of their social organizations that spontaneously participate in different cultural and welfare activities including conducting of awareness raising events on issues associated with their lives and works here.  The vote of thanks after the conclusion of the official part was given by Mr. Masud Rana Chowdhury, Commercial Counsellor of the Embassy. 

04.       There was a cultural part in the second segment. A mono-drama titled “Lal Jamin” was staged by famous Bangladeshi actress Momena Chowdhury. This monologue is based on our War of Liberation in 1971 where the struggling life of a Bangladeshi woman during and post-war scenario has been portrayed. The sensational performance of Momena Chowdhury mesmerized the audience.  

05.       Mr. Ruhul Amin, First Secretary (Political) & Head of Chancery conducted the event which has created the desired interest and awareness in the EPS community in South Korea. 

 

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *