এমআরপি পাসপোর্ট সংক্রান্ত কিছু সাধারণ প্রশ্ন ও তার উত্তর:

 

প্রশ্ন১ নতুন এমআরপি পাসপোর্ট করতে কি কি কাগজপত্রের প্রয়োজন হয়?

 

উত্তরঃ নতুন এমআরপি পাসপোর্ট করার ক্ষেত্রে নিম্নলিখিত কাগজপত্রাদি (Documents) দূতাবাসে জমা দিতে হবেঃ

১। এমআরপি পাসপোর্ট ফরম পূরন করতে হবে।

২। বর্তমান পাসপোর্ট ।

৩। জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা জন্ম নিবন্ধন-এর ফটোকপি ।

৪। ০১ টি পাসপোর্ট সাইজের ছবি (৫৫x৪৫ মিমি)

৫। পাসপোর্ট ফি বাবদ কোরিয়ান ওন  ১,২০,০০০/- অফিসিয়াল একাউন্ট নাম্বার-এ জমা দিয়া রসিদ দিতে হবে । 

৬। ছাত্রদের জন্য ফি বাবদ কোরিয়ান ওন ৪০,০০০/- অবশ্যই ডি-২ ভিসাধারী হতে হবে এবং স্ব স্ব বিশ্ববিদ্যালয় আইডি কার্ড এবং Alien Registration Card (ARC) নিয়ে আসতে হবে।

প্রশ্ন২ কোরিয়াতে জন্মগ্রহনকারী শিশুদের এমআরপি পাসপোর্ট করতে কি কি কাগজপত্রের প্রয়োজন হয়?

 

উত্তরঃ কোরিয়াতে জন্মগ্রহনকারী শিশুদের এমআরপি পাসপোর্ট করার ক্ষেত্রে নিম্নলিখিত কাগজপত্রাদি (Documents) দূতাবাসে জমা দিতে হবেঃ

১। এমআরপি পাসপোর্ট ফরম পূরন করতে হবে।

২। কোরিয়ান হাসপাতাল থেকে ইস্যুকৃত জন্ম সনদ যাহা ইংরেজীতে অনুবাদকারী এবং অবশ্যই শিশুর নাম উল্লেখ থাকতে হবে ।

৩। শিশুর চার কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি (৫৫x৪৫ মিমি) (সাদা পটভূমি)

৪। পিতা মাতার পাসপোর্ট এবং Alien Registration Card (ARC) এর ফটোকপি ।

৫। পিতা মাতার নিকাহনামা (Marriage Certificate) এর ফটোকপি ।

৬। পিতা মাতার দুই কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি (৫৫x৪৫ মিমি) (সাদা পটভূমি)

৭। পাসপোর্ট ফি বাবদ কোরিয়ান ওন ১,২০,০০০/- অফিসিয়াল একাউন্ট নাম্বার-এ জমা দিয়া রসিদ দিতে হবে । 

৮। জন্ম নিবন্ধ সনদ ফি বাবদ কোরিয়ান ওন  ৬,০০০/- জমা দিয়া রসিদ দিতে হবে । 

প্রশ্ন৩ বর্তমান পাসপোর্টটি পাওয়া না গেলে অথবা হারিয়ে গেলে কিভাবে নতুন পাসপোর্ট করা যাবে?

 

উত্তরঃ বর্তমান পাসপোর্ট পাওয়া না গেলে অথবা হারিয়ে গেলে নিম্নলিখিত পদক্ষেপ গ্রহণ করে নতুন পাসপোর্ট করা যাবেঃ

১। প্রথমেই আপনার হারানো পাসপোর্ট এর একটা কপি সংগ্রহ করে নিন অথবা পাসপোর্ট নাম্বারটা মনে করার চেষ্টা করুন ।

২। নিজে অথবা বর্তমান কোম্পানি/মালিক/প্রতিনিধিকে পুলিশ রিপোর্ট সংগ্রহ করতে হবে ।

৩। উক্ত পুলিশ রিপোর্ট দূতাবাসে জমা দিলে পর্যবেক্ষণ (verification) করত সঠিক পাওয়া গেলে দূতাবাস কর্তৃক নতুন পাসপোর্ট issue করা হবে। এক্ষেত্রে নিম্নলিখিত কাগজপত্রাদি (Documents) দূতাবাসে জমা দিতে হবেঃ

১। এমআরপি পাসপোর্ট রিইস্যু ফরম পূরন করতে হবে।

২। জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা অনলাইন জন্ম নিবন্ধন-এর ফটোকপি

৩। ০১ টি পাসপোর্ট সাইজ ছবি (৫৫x৪৫ মিমি) (সাদা পটভূমি)।

৪। পুরাতন পাসপোর্ট এর ফটোকপি

৫। পাসপোর্ট ফি বাবদ কোরিয়ান ওন  ১,২০,০০০/- অফিসিয়াল একাউন্ট নাম্বার-এ জমা দিয়া রসিদ দিতে হবে ।

প্রশ্ন৪ নতুন পাসপোর্ট কত দিনের মধ্যে পাওয়া যায়?

 

 উত্তরঃ সিউলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে পাসপোর্ট প্রিন্ট করা হয়না। বাংলাদেশ থেকে পাসপোর্ট পাঠানোর তারিখ-এর ব্যাপারেও কোন অগ্রিম তথ্য দূতাবাসে থাকেনা। বাংলাদেশ থেকে পাসপোর্টসমূহ গ্রহণ করা মাত্র বাংলাদেশ দূতাবাসের Facebook page-এ গ্রহণকৃত পাসপোর্টসমূহের লিস্ট আপলোড করা হয়। এক্ষেত্রে নতুন পাসপোর্ট গ্রহণের জন্য অপেক্ষমান সকলকে সিউলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের Facebook page-“Embassy of Bangladesh Seoul” এর পোস্টসমূহ নিয়মিতভাবে দেখার অনুরোধ করা হলো।

প্রশ্ন৫ নতুন পাসপোর্টএ কি নিজের নাম/পিতার নাম/মাতার নাম বা জন্ম তারিখ পরিবর্তন করা যায়?

 

উত্তরঃ পাসপোর্ট-এ নিজের নাম/পিতার নাম/মাতার নাম বা জন্ম তারিখ-এ কোন প্রকার পরিবর্তন করা বাঞ্ছনীয় নয় কারণ সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের পাসপোর্ট-এর গ্রহণযোগ্যতা কমে যায় এবং বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়।

প্রশ্ন৬ পাসপোর্টএর মেয়াদ না থাকলে কি পাসপোর্ট করা যায়। সর্বনিম্ন কতদিন মেয়াদ থাকলে নতুন পাসপোর্ট এর আবেদন করতে হবে?

 

উত্তরঃ পাসপোর্টের মেয়াদ না থাকলেও নতুন পাসপোর্ট-এর জন্য আবেদন করা যাবে। তবে মেয়াদ উত্তীর্ণের তিন মাস আগে নতুন পাসপোর্ট-এর জন্য আবেদন করা উত্তম।

প্রশ্ন৭ জন্ম নিবন্ধন বা জাতীয় পরিচয় পত্রের সঙ্গে বর্তমান পাসপোর্টের তথ্য মিল থাকতে হবে?

 

উত্তরঃ জন্ম নিবন্ধন বা জাতিয় পরিচয় পত্রের সঙ্গে বর্তমান পাসপোর্টের তথ্য মিল থাকা আবশ্যক ও বাঞ্ছনীয়।

প্রশ্ন-৮  এমআরপি পাসপোর্ট  ডাকযোগে পেতে কি করতে হবে ?

 

উত্তরঃ এমআরপি পাসপোর্ট  ডাকযোগে পেতে হলে নিম্নলিখিত পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে:

 ১। এমআরপি পাসপোর্ট রিইস্যু ফরম পূরন করতে হবে।

২। মূল পাসপোর্ট

৩। জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা জন্ম নিবন্ধন এর ফটোকপি ।

৪। ০১টি পাসপোর্ট সাইজ ছবি (৫৫x৪৫ মিমি) (সাদা পটভূমি)

৫। আপনার নিকটস্থ ডাকঘর হতে দুইটি খাম (২৬x১৯ সে.মি) নিয়ে প্রতিটিতে ৩,৩০০/- ওনের ডাকটিকেট লাগিয়ে দিতে হবে। যে কোন একটি খামে আবেদনকারীর নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার লিখে আর একটি খামের ভিতরে দিয়ে দূতাবাসের ঠিকানায় পাঠিয়ে দিতে হবে । পাসপোর্ট হয়ে গেলে দূতাবাস আপনার পুরাতন পাসপোর্টসহ নতুন পাসপোর্ট স্ব স্ব ঠিকানায় অতি দ্রুততার সাথে পোষ্ট করে দিবে ।

প্রশ্ন-৯ দূতাবাস থেকে কিভাবে পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে হবে ?

 

উত্তর: দূতাবাস থেকে নতুন এম আর পি সংগ্রহের সময় পুরাতন পাসপোর্ট সঙ্গে আনতে হবে ।

প্রশ্ন-১০ পাসপোর্ট হাতে পাওয়ার পর কি করতে হবে ?

 

উত্তর: নতুন পাসপোর্ট ইস্যু হওয়ার ৪৪ দিনের মধ্যে আপনাকে নিকটস্থ কোরিয়ান ইমিগ্রেশন অফিসকে জানাতে হবে। নতুবা দক্ষিণ কোরিয়ার ইমিগ্রেশন আইনের ১০০ ধারা অনুযায়ী ১(এক) মিলিয়ন কোরিয়ান ওন পর্যন্ত জরিমানা প্রযোজ্য হতে পারে ।

প্রশ্ন১১ ইপাসপোর্টের কাজ কবে থেকে শুরু হবে?

 

উত্তরঃ সিউলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম শুরু হওয়া মাত্র দূতাবাসের ফেসবুক পেইজ-এর মাধ্যমে সকলকে জানানো হবে।

এ বিষয়ে কোন জিজ্ঞাস্য থাকলে দূতাবাসের হটলাইন নাম্বারে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে :

মোবাইল: ০১০-২৮৮১-৪০৫৬